মেনু নির্বাচন করুন

ভাষা ও সাংস্কৃতি

ইউনিয়নের মানুষ সাধারনত চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলে, তবে কথ্য ভাষায় অনেকক্ষেত্রে কক্সবাজার কেন্দ্রিক শব্দের ব্যবহার লক্ষ করা যায়। যেমন- বাংলা ভাষায় পরিচিত কারো সাথে দেখা হলে আমরা জানতে চাই, আপনি কেমন আছেন?  এই কথাটি এখানকার মানুষ বলে  এভাবে, ‌''য়নেঁ গম আছন্‌ নে?'' ঐতিহাসিক ভাবে এ অঞ্চলের মানুষের সাথে বর্তমান মায়ানমার পুর্বে যাকে আরাকান নামে অভিহিত করা হতো তাদের সাথে ব্যাপক গমনাগমনের সর্ম্পক ছিল যা এখনও সীমিত আকারে হলেও অটুট রয়েছে। এ কারণে আরকানের ভাষার কিছু কিছু উপাদান  কক্সবাজারের কথ্য ভাষায় মিশ্রিত হয়ে গেছে। যেমন.....

আঞ্চলিক --------------------পরিভাষা

এ্যাঁডাম ----------------------সামর্থ্য।

মাইল্যাপীড়া----------------- ম্যালেরিয়া রোগ।

ঝোলাহীড়া------------------- পেঠের অসুখ।

ল্যাডগ্যঁই--------------------শুয়ে পড়ো।

ল্যাডা -----------------------ক্ষীণকায়।

হ্যান্নাক ---------------------অনর্খক।

আথিক্যা--------------------- হঠাৎ।

ঘুইট্ট্যা---------------------- গাছের ঘোড়ালী বিশেষ।

যা গই-----------------------চলে যাও।

কুইজ্জ্যা ---------------------শুকনা খড়ের স্তপ।

অঁনে----------------------- আপনি।

থিঅ্যা--------------------- দাঁড়াও।

 "আর মাইজ্জ্যাদারে বাইজ্জ্যাইয়েরে কুইজ্জ্যার তলে ফেলাই এইজ্জে ""

অর্থ (আমার মেঝো ভাইকে মেরে শুকনো খড়ের স্তপের নীচে ফেলে রেখেছে)।

 

নাফনদীরতীরবর্তী ও পাহাড়ের সম্বন্বয়ে অবস্থিত ইউনিয়ন হিসেবে সংস্কৃতি মিশ্র প্রকৃতির। মুসলিম, হিন্দু, রাখাইন, বড়ুয়া জনগোষ্ঠী বসবাস করায় কক্সবাজারে বাঙালী এবং বার্মিজ সংস্কৃতির এক অভূতপুর্ব সমন্বয় লক্ষ্য করা যায়। আঞ্চলিক হঁলা, হাইল্যা গীত, উল্টা গীত, বিলাপ, শোলক সংগীত এবং নৃত্যকলা এ অঞ্চলতো বটেই বৃহত্তর চট্টগ্রামের মানুষের কাছে ব্যাপকভাবে সমাদৃত। নাফ নদীরতীরবর্তী ও পাহাড়ের সম্বন্বয়ে হওয়ায় এ অঞ্চলের মানুষ প্রাচীনকাল হতেই দুর্যোগ এবং উত্তাল সাগরের সাথে সংগ্রাম করে টিকে রয়েছে বিধায় স্থানীয সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যম ও উপস্থাপনায় সংগ্রামের সেই চিত্র ফুটে ওঠে, বিশেষ করে জেলে ও কাঠুরিয়া সম্প্রদায়ের প্রাত্যাহিক জীবন।